ডেস্ক :
বিয়ের সকল আয়োজন শেষ। এক লাখ টাকা দেনমোহরে রেজিস্ট্র বিয়েও সম্পন্ন। অনুষ্ঠানে খাওয়া-দাওয়া শেষ করে এবার কনে তুলে দেওয়ার পালা। তখন বাধে বিপত্তি। উপহার ভাগাভাগি নিয়ে বর ও কনেপক্ষের মধ্যে শুরু হয় মনোমালিন্য। এক পর্যায়ে সেটি ঝগড়ায় রুপ নেয়। শেষ পর্যন্ত বিয়ের আসরেই ঘটে বিবাহ বিচ্ছেদ।
শুক্রবার বিকেলে রাজশাহীর বাগমারায় ঘটে এমন ঘটনা। বিয়ের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই আলাদা হতে হয় নবদম্পতিকে।

পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার উপজেলার তেলিপুকুর গাঙ্গোপাড়া গ্রামের মহসিন আলীর (২৮) সঙ্গে উপজেলার ইসমাইলপুর গ্রামের জেসমিন আক্তারের (২৩) বিয়ে হয়। তবে নতুন বউকে বরের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার সময়ই বিপত্তি বাধে। উপহারসামগ্রীর বণ্টন নিয়ে প্রথমে মনোমালিন্য ও পরে ঝগড়া চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছায়। গভীর রাত পর্যন্ত চলে এ অবস্থা। বিষয়টি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের মাধ্যমে থানা-পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। পরে উভয়পক্ষের সমঝোতার মাধ্যমে বর-কনের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে যায়।
কনের পরিবারের অভিযোগ, উপহারসামগ্রী নিয়ে যে শর্ত ছিল, বিয়ের আসরে তা পালন করেনি বরপক্ষ।
বরের প্রতিবেশী ও সাবেক ইউপি সদস্য আজাহার আলী বলেন, দু’পক্ষই কঠোর ছিল। তাদের উচিত ছিল একটু শান্ত হওয়া। এমন ঘটনা কারোই কাম্য নয়।
নিকাহ রেজিস্ট্রার আক্কাছ আলী বলেন, একই আসরে বিয়ের কয়েক ঘণ্টা পরই বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা দুঃখজনক।
বাগমারা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আফজাল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমরা শুনেছি। উভয়পক্ষের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে বিচ্ছেদ হয়েছে। এ কারণে ঘটনা আর সামনে গড়ায়নি।