নোতুন খবর.কম :
” সিরাজের চামড়া তুলে নিব আমরা, সিরাজের দুই গালে জুতা মার তালেতালে, লালুর চামড়া তুলে আমরা” এমন সব স্লোগানে বগুড়ায় ঝাড়ু মিছিল ও সড়ক অবরোধ করা হয়েছে। মিছিলকারিরা বিএনপি থেকে সদ্য বহিস্কৃত জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি পৌরসভার ১১ নং ওয়ার্ডে বার বার নির্বাচিত কাউন্সিলর সিপার আল বখতিয়ারের বহিস্কারকে অবৈধ উল্লেখ করে
“অবৈধ বহিস্কার মানিনা মানবোনা, সিপার ভাইএর বহিস্কার মানিনা মানবোনা” বলেও স্লোগান দেয়।
শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত দেড় ঘণ্টাব্যাপী শত শত নারী পুরুষের অংশনেয়া ঝাড়ু মিছিলটি শহর প্রদক্ষিণ করে। শহরের সাতমাথা হয়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন শেষে মিছিলটি পিটিআই মোড়েগিয়ে মিছিলে অংশগ্রহণ কারী নারী পুরুষ সড়কে বসে পড়ে। মিছিল ও সড়ক অবরোধের সময় তারা বিএনপি চেয়ার পার্সনের উপদেষ্টা সাবেক সাংসদ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক ও বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোঃ সিরাজের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকে। সেখানে বিছুক্ষন অবস্থান করে মিছিল সহকারে এলাকায় চলে যায়।

জানাগেছে, বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি গঠনের দেড় বছরের মধ্যে বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের ২৩ জন নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। সর্বশেষ গত ২৮ সেপ্টেম্বর জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি ও জেলা বিএনপির সাবেক প্রচার সম্পাদক পৌরসভার ১১ নং ওয়ার্ডে বার বার নির্বাচিত কাউন্সিলর সিপার আল বখতিয়ারকে দলেন প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। এরপর থেকে বিএনপির রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। জেলা বিএনপি অফিস দখল নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।

শনিবার (৩ অক্টোবর) বগুড়া জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সম্মেলন উপলক্ষে বগুড়া জেলা জজ আদালত চত্বরে আয়োজিত কর্মসূচিতে সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে প্রধান অতিথি করা হয়। বেলা ১১টায় তিনি কর্মসূচিতে যোগ দিবেন এমন খবরে বিদ্রোহী গ্রুপের সহস্রাধিক নারী ও পুরুষ কর্মী সমর্থক ঝাড়ু মিছিল নিয়ে শহরের শেরপুর রোডে পিটিআই মোড়ে অবস্থান নেয়। এরপর ঝাড়ু মিছিল নিয়ে নেতা-কর্মীরা শহরের সাতমাথা প্রদক্ষিণ করে আবারও পিটিআই মোড়ে সংসদ সদস্যের শহরের প্রবেশ পথে অবস্থান নেয়। মিছিলকারীরা গোলাম মোহাম্মদ সিরাজকে সংস্কারপন্থী নেতা উল্লেখ করে দল থেকে তার অব্যাহতি এবং তার সুপারিশে বহিষ্কৃতদের দলে ফিরিয়ে আনার দাবি জানায়। এদিকে বিদ্রোহী গ্রুপের ঝাড়ু মিছিল শেষ হলে দুপুর দেড়টার দিকে গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ কর্মী বাহিনীর বহর নিয়ে আদালত চত্বরে তার কর্মসূচিতে যোগ দেন।