ডেস্ক : দিনাজপুরে বীরগঞ্জ উপজেলার শতগ্রাম ইউনিয়নের নোহাইল গ্রামে কন্যাসন্তান জন্মানোয় ক্ষুদ্ধ হয়ে হত্যা করার অভিযোগে শিশুটির মাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকালে গ্রেপ্তারের পর তাকে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রসূতি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছে। শিশুর মৃতদেহ সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।
গ্রেপ্তার কোহিনুর বেগম (২৫) দিনাজপুরের বীরগঞ্জের শতগ্রাম ইউনিয়নের নোহাইল গ্রামের আব্দুর রশিদ স্ত্রী। তাদের দুই বছর বয়সী আরও একটি মেয়ে রয়েছে।

বীরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নবী হোসেন খান বলেন, “কন্যা সন্তানের প্রতি বিরাগে মা নিজেই এ হত্যা করেছে।”

শিশুটির বাবা আব্দুর রশিদ জানান, সোমবার দুপুরে তাদের বাড়িতে কোহিনুর দ্বিতীয় কন্যার জন্ম দেন। রাতে ফিরে ঘরে নবজাতকসহ স্ত্রীকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির পাশের এক পুকুরে কাপড়সহ নবজাতকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান বলে জানান আবদুর রশিদ। স্ত্রীর বাসনা ছিল ছেলে সন্তানের, কিন্তু মেয়ে হওয়ায় সে পানিতে ফেলে দিয়ে পাশের একটি বিলে লুকিয়ে ছিল। এ ব্যাপারে আব্দুর রশিদ বাদী হয় কোহিনুর বেগমকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেছেন।