ডেস্ক:
ডাক্তারি সনদসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে ও সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারায় বগুড়ার কাহালুতে এমদাদুল হক মিলন (৪২) নামের এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করে ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। রোববার (৪ জুলাই) উপজেলার মুরাইল বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়। তিনি কাহালু উপজেলার মুরাইল ভালতা গ্রামের মোজাম্মেল হকের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে কাহালু উপজেলার মুরাইল বাজারে ‘ফেরোজা চিকিৎসালয় অ্যান্ড এশা ডেন্টাল কেয়ার ফার্মেসিতে’ রোগী দেখে আসছিলেন এমদাদুল হক মিলন। তিনি তার দেয়া ব্যবস্থাপত্রে নিজের অভিজ্ঞতা হিসেবে দাঁত বাঁধাসহ সাধারণ চিকিৎসা উল্লেখ করেন। রোববার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মাছুদুর রহমান সেখানে অভিযান চালান। এসময় এমদাদুল হক মিলন ডাক্তারি সনদসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে ও সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

কাহালু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মাছুদুর রহমান জানান, তার ভুল চিকিৎসায় সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিল। এজন্য তাকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।