নোতুন খবর.কম :
বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শী, সাহসী নেতৃত্বে বাঙালি জাতি পরাধীনতার শৃঙ্খল ভেঙে ছিনিয়ে এনেছিল স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য। বাঙালি পেয়েছে স্বাধীন রাষ্ট্র, নিজস্ব পতাকা ও জাতীয় সংগীত। জাতির পিতা আমাদের দিয়েছেন পবিত্র সংবিধান। দেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে একটি গোষ্ঠী ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মপ্রিয় মানুষের মনে বিদ্বেষ ছড়ানোর অপচেষ্টা করছে। ভাস্কর্যকে যারা মূর্তি বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে, তারা নিজেরাই ভ্রান্তিতে আছে। দেশের আলেম সমাজ এবং বিশেষজ্ঞরা বারবার বলেছেন, মূর্তি আর ভাস্কর্য এক নয়। ইসলাম শান্তির ধর্ম, এ ধর্মের বিধিবিধানে ধর্মীয় ইস্যুতে বাড়াবাড়ির সুযোগ নেই। ধর্মীয় বিষয়ে বিতর্ক করতে নিষেধ করা হয়েছে, ফেতনা-ফ্যাসাদ সৃষ্টিতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। জনগণের শান্তি বিনষ্টের যে কোনো অপচেষ্টা জনগণই রুখে দাঁড়াবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, সংবিধান এবং রাষ্ট্রবিরোধী যেকোন ষড়যন্ত্র রুখে দিতে দেশপ্রেমিক জনতা প্রস্তুত রয়েছে। তিনি বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করে দেশে ইসলাম সম্পর্কে গবেষণা, চর্চা এগিয়ে নিতে উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ধর্মীয় শিক্ষা প্রসারে মাদ্রাসা বোর্ড পুনর্গঠনসহ ইসলাম প্রচারে তাবলিগ জামাতকে জমি প্রদান করেছিলেন তিনি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা প্রকৃত ইসলামের চর্চা এগিয়ে নিতে প্রতিটি উপজেলায় মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণ করেছেন। একজন ধর্মপ্রাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন সরকার পরিচালনার দায়িত্বে, তখন এ দেশে ইসলামবিরোধী কোনো কার্যক্রম কখনই হবে না ইনশাল­াহ।
তিনি শনিবার সন্ধায় দলীয় কার্যালয়ের সামনে জেলা আ’লীগের সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে কথাগুলো বলেন। কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর নির্মানাধীন ভাস্কর্য ভাঙ্গার প্রতিবাদে সন্ধায় শহরে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে আরো বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, সহ-সভাপতি টি জামান নিকেতা, প্রদীপ কুমার রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান দুলু, সাগর কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন নবাব, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সুলতান মাহমুদ খান রনি, দপ্তর সম্পাদক আল-রাজী জুয়েল, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার পারভেজ রুবন, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক মাশরাফি হিরো, উপ দপ্তর সম্পাদক খালেকুজ্জামান রাজা, উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাহফুজুল হক ভুইয়া রুমেল, সদস্য প্রভাষক আব্দুর রাজ্জাক, সাইফুল ইসলাম বুলবুল, আলমগীর হোসেন স্বপন, সোহরাব হোসেন সান্নু, গৌতম দাস, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রফি নেওয়াজ খান রবিন, সাধারণ সম্পাদক আবু ওবায়দুল হাসান ববি, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম, জেলা যুবলীগের সভাপতি শুভাশীষ পোদ্দার লিটন, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডাবলু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সাজেদুর রহমান সাহীন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাস প্রমূখ।