নোতুন খবর.কম : বিএনপির ভাইচ চেয়ারম্যান মোঃ শাহজাহান বলেন, নির্বাচনকে আমরা অন্দোলনের অংশ হিসেবে নিয়েছি। আমাদের নির্বাচনে যেতে হবে ও নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা জনগণের কাছে যাবো এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়েই এই সরকারকে আমরা নিয়মতান্ত্রিক ভাবে পরাজিত করব। এটাই আমাদের কাজ। এ কাজটি আমরা করে যাচ্ছি। আমরা বিশ্বাস করি আমরা সফল হবো। কারণ জণগণের যে শক্তি সেই শক্তির কাছে সকল অপশক্তি পরাজিত হবে। ক্ষমতাসীনরা ভয়ের পরিস্থিতি তৈরি করে দেশ শাসন করছে। বগুড়া-১ আসনের উপ নির্বাচনে যদি দিনের ভোট রাতে নেওয়া হয় তাহলে এই বগুড়া থেকে সরকার পতনের দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। বগুড়ার এই নির্বাচন বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার নির্বাচন। আমাদের নেতা-কর্মীদেরকে ভোটের মাঠে হয়রানি করলে আমরা বসে থাকবো না। জনগণের অধিকার শেষ হয়ে গেছে। ভোট ও রাষ্ট্রের মালিকানা জনগণের কাছে ফিরিয়ে দিতে হবে। সরকার দিনের ভোট রাতে নেওয়ার কারণে মানুষ ভোট কেন্দ্রমুখী হচ্ছে না।

বুধবার বগুড়া জেলা বিএনপির উদ্দ্যেগে দলীয় কার্যালয়ে বিশেষ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, মানুষ ভোট দিতে চায়, ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ চায়। ভোট নাগরিক অধিকার এবং রাষ্ট্রের মালিকানা বিষয়ে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিবেন। শাহজাহান বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে জনগণের ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। সংগঠনকে শক্তিশালী করে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, আজকে আমাদের সময় এসেছে, জনগণের ঐক্য গড়ে তুলে সংগঠনকে শক্তিশালী করে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা। তাহলেই ফ্যাসিস্ট সরকার খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে বাধ্য হবে। তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ রাজণৈতিক কারনে একটার পর এটা মামলা দিয়ে তাকে আটকিয়ে রাখা হয়েছে। এটার একটাই উদ্দেশ্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের মানুষের কাছে গণতন্ত্রের মাতা হিসেবে অভিসিক্ত হয়েছেন। যখনই গণতন্ত্রের সমস্যায় ভোগে দেশনেত্রী তিনি সামনে এসে অকোতভয়ে আপোষহীনভাবে নেতৃত্ব প্রদান করেছেন। এই ইতিহাস দেশবাসীর জানা।

বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক ও বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজের সভপতিত্বে বিশেষ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্ঠা ও বগুড়া পৌর মেয়র অ্যাডভাকেট একেএম মাহবুবর রহমান, বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্ঠা সাবেক এমপি মোঃ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। আরো বক্তব্য রাখেন বগুড়া জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক, ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল, বগুড়া জেলা বিএনপির নেতা রেজাউল করিম বাদশা, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা, জয়নাল আবেদিন চাঁন, লাভলী রহমান, বগুড়া-১ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী এ কে এম আহসানুল তৈয়ব জাকির, বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য ডাঃ শাহ মোঃ শাহজাহান আলী, এম আর ইসলাম স্বাধীন, তৌহিদুল আলম মামুন, কেএম খায়রুল বাশার, সহিদ উন নবী সালাম, শেখ তাহা উদ্দিন নাইন, ওমর ফারুক খান, মনিরুজ্জামান মনির। সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, মাছুদুর রহমান হিরু, কাজী এরফানুর রহমান রেন্টু, মোশারফ হোসেন, আবুল কাশেম, আহসানুল হাবীব রাজা, পলাশ, জেলা কৃষক দলের আহŸায়ক আকরাম হোসেন, বগুড়া জেলা যুবদলের আহŸায়ক খাদেমুল ইসলাম খাদেম, যুগ্ম আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক সরকার মুকুল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু হাসান, সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী রিগ্যান, জেলা শ্রমিকদলের সাইদুল কবির প্রমুখ।