সাব্বির হাসান, গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ বগুড়া গাবতলীর সুখানপুকুর খাদ্য গুদামে ধান দেয়াকে কেন্দ্র করে স্থানীয় দুই ইউপি সদস্য ও তাদের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পালটা ধাওয়া ও মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ করা হলে পুলিশ ওই দুই ইউপি সদস্যসহ চারজনকে আটক করেছে।
জানা গেছে, গাবতলীর সুখানপুকুর খাদ্য গুদামে ১৪৩ টন ধান আ’লীগের স্থানীয় এক প্রভাবশালী নেতার লোকজন দু’শ বস্তা ধান দেয়ার সময় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নেপালতলী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার ও ইউনিয়ন আ’লীগের সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম উজ্জলসহ স্থানীয়রা আটকে দেয়। এ নিয়ে নুরুল ইসলাম উজ্জল, সাবেক যুবলীগ সভাপতি রেজাউল করিম রানা, রুবেল, সেলিমকে ২৫ জুলাই বিকাল ৫টায় একই এলাকার ২নং ওয়ার্ড মেম্বার আমজাদ হোসেন ও তার পুত্র ছাত্রলীগ নেতা হাকিমসহ একদল লোক মারপিট করে আহত করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঐদিন রাতেই উজ্জল মেম্বার গাবতলী থানায় এজাহার দায়ের করেন। এ সময় প্রতিপক্ষরা রাত ১২টায় সুখানপুকুর এলএসডি থেকে উল্লেখিত ধান সরিয়ে ফেলে বলে উজ্জল মেম্বার অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় ২নং ওয়ার্ড মেম্বার আমজাদ হোসেন ও তার পুত্র ছাত্রলীগ নেতা হাকিমকে আটক করে পুলিশ। একই সাথে ১৪৩ টন ধান আ’লীগের প্রভাবশালী এক ব্যক্তির নামে বেনামে দেয়ার অভিযোগ ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টায় ২৬জুলাই জুমার নামাজের পর মারপিটের অভিযোগ এনে ইউনিয়ন আ’লীগের সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম উজ্জল ও আমতলীপাড়ার খোরশেদকে আটক করে পুলিশ। এ ঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। ইউপি মেম্বার নুরুল ইসলাম উজ্জল স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ২৫ জুলাই বিকাল ৫টায় অবৈধভাবে প্রকৃত কৃষকদের ফাঁকি দিয়ে ৬টি ভটভটিতে করে ১৪৩টন ধান সুখানপুকুর এলএসডিতে আনলোড করার সময় আমরা বাধা দেয়ায় আমিসহ আরো ৪জনকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। গাবতলী থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মিমাংসার চেষ্টা চলছিলো বলে একাধিকসুত্রে জানা গেছে।