সাব্বির হাসান, গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ বগুড়ার গাবতলীতে জমিজমার বিরোধের জের ধরে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫জন আহত হয়েছেন। গত ১০ডিসেম্বর বিকেলে উপজেলার মহিষাবান ইউনিয়নের মড়িয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। পুলিশ এই ঘটনায় জড়িত ৫জনকে আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে।
একাধিকসূত্র জানায়, গাবতলীর মড়িয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত খেজো প্রামানিকের ছেলে করিম প্রামানিক ২০১৪সালে মারা যান। করিম প্রামানিকের কোন ছেলে না থাকায় তার রেখে যাওয়া প্রায় ৩বিঘা জমির মালিকানা হন তার ছয় মেয়ে। ছয়বোনের প্রত্যেকে ২৮শতক করে জমি ভাগ পেয়ে ভোগদখল করতে থাকেন। কিন্তু একই গ্রামের জনৈক ইয়াছিন আলী, ফজলু ও সিরাজুল ছয়বোনের ভোগদখলীয় ওই তিন বিঘা জমির মধ্যে ৫৬শতকের মালিকানা দাবী করে জোরপূর্বক টিনেরঘর ও চারাগাছ রোপন করে। এরই জের ধরে ১০ডিসেম্বর বিকেলে উভয়পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় মৃত করিমের মেয়ে কোহিনুর বেগম (৪৬), রেখা বেগম (৪০), মিলি বেগম (৪৫) ও তার স্বামী বাদশা প্রাং গুরুতর আহত হয়ে গাবতলী হাসপাতালে ভর্তি হন। এদিকে এ ঘটনায় আহত ওই তিনবোনসহ ৪জন হাসপাতালে চিকিসাধীন থাকা অবস্থায় তাদের প্রতিপক্ষ ইয়াছিন আলী বাদী হয়ে বাড়ীঘর ভাংচুর ও চারাগাছ উপড়ে ফেলে ৩লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন এবং পরিবারের ১১জনকে মারপিট করার অভিযোগ এনে ১০ডিসেম্বর রাতে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ ওই অভিযোগমূলে ৫জনকে আটক করে গতকাল জেলহাজতে প্রেরণ করে। আটককৃতরা হলো, সিয়াম (১৪), ফারদিন (১৫), রেজওয়ান হাবিব (১৬), সজিব (১৬) এবং সাদিকুর রহমান। এ প্রসঙ্গে গাবতলী মডেল থানার তদন্ত ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ইয়াছিন আলীর বাদীত্বে একটি অভিযোগ আমরা হাতে পেয়েছি এবং ৫জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপরপক্ষের আহতদের কোন অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে ওসি আনোয়ার স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান।