ফলোআপ———–
সাব্বির হাসান, গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ বগুড়ার গাবতলীতে তুচ্ছ এক ঘটনায় প্রতিপক্ষের চাইনিজ কুড়াল ও দা’এর কোপে দুলাল প্রাং (৪৬) খুনের ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহত দুলালের স্ত্রী স্থানীয় ইউপি সদস্য নাজমা বেগম বাদী হয়ে গত শনিবার রাতে গাবতলীর ঘোন সাঘাটিয়া নয়াপাড়া গ্রামের আনছার মোল্লার ছেলে মুক্তার (৩৫)কে প্রধান অভিযুক্ত করে ২১জনের নাম ও ১৪/১৫জনকে অজ্ঞাত বলে মামলাটি দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ ওইদিনই একই পরিবারের মহিলাসহ ৩জনকে আটক করেছে। এরা হলো রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের ঘোন সাঘাটিয়া নয়াপাড়া গ্রামের ঠান্ডু মিয়ার স্ত্রী নাজমা বেগম (৪০), ছেলে ওমর ফারুক (৩০) ও তার স্ত্রী রেশমা বেগম (২৫)।
উল্লেখ্য, উপজেলার রামেশ্বরপুরের ঘোন সাঘাটিয়া গ্রামের মিনহাজুলের (৪৫) সাথে ঘোন সাঘাটিয়া নয়াপাড়া গ্রাে জাকিরুলের (২৩) গত রমজান মাসে তুচ্ছ ঘটনায় মারপিট হয়। এরই জের ধরে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় আবারও মিনহাজুল ও জাকিরুলের মধ্যে মারপিট শুরু হয়। এ সময় জাকিরুল ঘোন সাঘাটিয়া গ্রামের আমজাদের ছেলে রকি (৩০)কে তুলে নিয়ে যায়। রকির বাবা আমজাদ, রকির চাচা দুলাল, তার স্ত্রী ইউপি সদস্য নাজমাসহ ৭/৮জন রকিকে উদ্ধার করার জন্য সাঘাটিয়া নয়াপাড়া গ্রামে গেলে জাকিরুল, মোকলেছ, মুক্তার, সবুজ, ও ফারুকের নেতৃত্বে ৫০/৬০জন লোক রকির অভিভাবকদের উপর হামলা চালায়। এসময় চাইনিজ কুড়াল দিয়ে দুলালের মাথায় এবং দা দিয়ে হাটুতে কোপ দিলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। দুলালকে বাঁচাতে এসে কাজল (৩৫), আমজাদ (৫২) ও রনি (২২) গুরুত্বর আহত হয়। পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (শজিমেক) ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত শনিবার সকাল পৌনে ১০টায় দুলাল মারা যায়। নিহত দুলাল ওই গ্রামের লাল মোহাম্মাদের ছেলে।