সাব্বির হাসান, গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার গাবতলীতে ৫টি চোরাই গরু উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। গরু চুরির সঙ্গে জড়িত ৩ চোরকে গ্রেফতার করে সোমবার জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তিনদিনের ব্যবধানে উপজেলার কাগইল ইউনিয়নে ৩জন কৃষকের ৫লাখ ৬৭হাজার টাকা মূল্যের মোট ১০টি গরু চুরি হয়েছিল।
থানাসূত্রে জানা গেছে, গত ৫ই জুন দিবাগত রাতে উপজেলার কাগইল ইউনিয়নের বেড়েরঘোন গ্রামের ইউনুছ উদ্দিনের ছেলে সাজেদুর রহমান শামীমের গোয়ালঘর হতে ২লাখ ৩২হাজার টাকা মূল্যের ৪টি গরু চুরি হয়। এ ঘটনায় সাজেদুর রহমান শামীম বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের নামে মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে বগুড়া পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞা বিপিএম (বার) এর দিকনির্দেশনায় ওসি জিয়া লতিফুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জামিরুল ইসলামসহ সঙ্গীয় ফোর্স গত ১৩জুন রাত সাড়ে ১০টায় কাগইল ইউনিয়নের কৈঢোপ গ্রামে এক সাঁড়াশি অভিযান চালায়। অভিযানকালে চুরি যাওয়া ৫টি গরু উদ্ধারসহ গরু চুরির সাথে জড়িত ৩জনকে গ্রেফতার করে থানায় আনে। গ্রেফতারকৃতরা হলো, কাগইল কৈঢোপ গ্রামের চাঁন মিয়ার ছেলে ঠান্ডা মিয়া ওরফে ঠান্ডা (৬০), আঃ রাজ্জাকের ছেলে মহিদুল ইসলাম (২৫) এবং শিবগঞ্জ উপজেলার ঘোগারপাড়া গ্রামের মৃত হাসেন আলীর ছেলে রুবেল (৪৫)। গ্রেফতারকৃতদের গতকাল জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত ২ই জুন দিবাগত রাতে কাগইল ইউনিয়নের বেড়েরঘোন গ্রামের আঃ গফুরের ছেলে রিপন মিয়ার ৯৫হাজার টাকা মূল্যের ২টি গরু এবং গত ৮ই জুন দিবাগত রাতে একই গ্রামের আমির উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে আঃ রাজ্জাকের ১লাখ ৯২হাজার টাকা মূল্যের ৪টি গরু চুরি হয়। এ ব্যাপারে মডেল থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, তিনদিনের ব্যবধানে কাগইল ইউনিয়নের বেড়েরঘোন গ্রামের তিনজন কৃষকের ৫লাখ ৬৭হাজার টাকা মূল্যের মোট ১০টি গরু চুরি হয়। তবে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে ৫টি গরু উদ্ধার করা হয়েছে। চুরি যাওয়া আরও ৫টি গরু উদ্ধার ও অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান।