সাব্বির হাসান, গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি ঃ বগুড়ার গাবতলী মডেল থানায় জমিজমা সংক্রান্ত শালিশী বৈঠকের নামে ডেকে এনে এক ছ’মিল শ্রমিককে মারপিট ও হাজতে আটক রাখার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। রবিবার বিকেলে গাবতলী প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন উপজেলার কাগইল গ্রামের মৃত মমতাজের ছেলে ভূক্তভোগী ছ’মিল শ্রমিক মোঃ রফিক প্রাং। তিনি তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, পৈত্রিকসূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তিতে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপন করে ভোগদখল করে আসছি। কিন্তু কাগইল গ্রামের শ্রী পলাশ ও শ্রী সঞ্জিত দখলীয় ওই গাছপালা কাটা শুরু করলে তাদের বাধা দেই। এতেই শ্রী পলাশ ও শ্রী সঞ্জিত গাবতলী মডেল থানায় উল্টো আমারই বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। এরই প্রেক্ষিতে থানার এসআই হাবিব ও এসআই রিপন আমাকে গত ১২ জুলাই শুক্রবার বিকেল ৪টায় থানায় হাজির হতে বলেন। আমি ওইদিন যথা সময়ে হাজির হয়ে আমার জমির কাগজপত্র উপস্থাপন করি। কিন্তু আমার কাগজপত্র যাচাই-বাছাই না করে এসআই হাবিব আমাকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বলে। স্বাক্ষর দিতে রাজী না হওয়ায় এসআই হাবিব, এসআই রিপন, কাগইল ইউনিয়ন পুলিশিং কমিটির সভাপতি মোস্তা, পলাশ ও সঞ্জিত আমাকে মারপিট শুরু করেন। একপর্যায়ে আমাকে থানা হাজতে বিনা অপরাধে ৩ঘন্টা আটকে রেখে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে জেল হাজতে প্রেরণের হুমকি দেয়। বর্তমানে এসআই হাবিব, এসআই রিপন, মোস্তা, পলাশ ও সঞ্জিত আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দিচ্ছে। আমি ও আমার পরিবার এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। সংবাদ সম্মেলের মাধ্যমে আমি বিষয়টি সবাইকে অবগত করলাম। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ভূক্তভোগী রফিক প্রাং এর মা রিজিয়া বেওয়া (৭৫) ও শিশুকন্যা জান্নাতী খাতুন (৫)।