ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরের সময়েই রণক্ষেত্রে পরিণত হলো দেশটির রাজধানী দিল্লি। দেশটির বিতর্কিত নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (সিএএ) পক্ষ ও বিপক্ষ গ্রুপের সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন দিল্লি পুলিশের হেড কনস্টেবল রতন লাল। এ ছাড়া পুলিশের ডিজিপিসহ আহত হয়েছেন আরো অনেকে।

সোমবার সকালে উত্তর-পূর্ব দিল্লির ভজনপুরা, মৌজপুর ও জাফরাবাদে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে গত ২৪ ঘটনায় ওই অঞ্চলটিতে দ্বিতীয়বার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল।

খবরে বলা হয়, এদিন দিল্লির একাধিক স্থানে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থক ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় তারা পরস্পরকে লক্ষ্য করে ইট-পাথর নিক্ষেপ করে। যানবাহন ও দোকানপাটে অগ্নিসংযোগ এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় দিল্লির একাংশ রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

দিল্লি পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে আধা সামরিকবাহিনীও মোতায়েন করা হয়।

সহিংসার ঘট‌নায় দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে একে ‘অত্যন্ত বিরক্তিকর সংবাদ’ বলে ব্যক্ত করেন।

অরবিন্দ কেজরিওয়াল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা ফেরাতে পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান।

সোমবার নির্ধারিত সময়ের কিছুটা আগেই স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে ভারতের আহমেদাবাদের সর্দার বল্লভভাই প্যাটেল বিমানবন্দরে অবতরণ করল মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিমান।

সন্ধ্যার দিকে নয়াদিল্লিতে ট্রাম্পের পৌঁছানোর কথা রয়েছে; তার আগেই এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এমন ঘটনায় ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বিক্ষোভ যাতে চরম আকার ধারণ না করে, সে জন্য ইতিমধ্যেই জাফরাবাদ, মৌজপুর-বাবরপুর, জোহরি এনক্লেভ এবং শিব বিহার মেট্রো স্টেশনের গেট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সেখানে কোনও ট্রেন দাঁড়াবে না। তাছাড়া ওই এলাকায় ১৪৪ ধারাও জারি হয়েছে।