ডেস্ক ঃ
করোনাভাইরাসের কারণে মাঠের রাজনীতি নেই বললেই চলে। দীর্ঘ স্থবিরতার পর ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক কাঠামো শক্তিশালী করতে দলের শূন্য পদগুলো পূরণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
মন্ত্রিসভায় রদবদলেরও আসতে পারে বলে দলের একটি সূত্র ইঙ্গিত দিয়েছে।
। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ মারা যাওয়ার পর এখনও সেই পদে কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এর বাইরে পারফরম্যান্সের বিচারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে নিয়ে কিছুটা হলেও বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে আওয়ামী লীগ। তাই ধর্মমন্ত্রী নিয়োগ দেওয়ার পাশাপাশি মন্ত্রীসভায় আরো দুই-একজন নতুন মুখ যোগ হতে পারে বলে জানা গেছে।

৩০ আগস্ট গণভবনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের মিটিং ডেকেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে এজেন্ডার বাইরে গিয়ে দলের ভালো-মন্দা নিয়ে আলোচনা হয়। সিদ্ধান্ত হয়, সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝিতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেখানেই দলের শূন্য পদ এবং মন্ত্রিসভা নিয়ে আলোচনা হয়।

দলীয় সূত্র বলছে, সর্বশেষ জাতীয় সম্মেলনে দলের বেশ কয়েকটি শীর্ষ পদ খালি রাখা হয়েছিল, নানা কারণে সেগুলো আর পূরণ করা হয়নি। এছাড়া করোনাভাইরাসের এই ডামাঢোলের মধ্যে অল্প সময়ের ব্যবধানে মারা গেছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম ও সাহারা খাতুন। নির্বাহী সদস্য বদরউদ্দিন আহমেদ কামরানও এ সময় চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

তাই আগের শূন্য পদ এবং করোনাকালে শূন্য হওয়া পদগুলো শিগগিরই পূরণ করা হবে বলে জানিয়েছে দলের বিস্বস্ত সূত্র।
সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ফারুক খান জানান, উপনির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ের মিটিংয়ে দলের কার্যক্রম গতিশীল করার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শূন্যপদ দিয়ে আলোচনা হয়েছে। সামনের মিটিংয়ে বিস্তারিত আলোচনার মাধ্যমে সেগুলো পূরণ করার ব্যবস্থা করা হবে।