ডেস্ক : উগান্ডার কিয়োঙ্গা জেলার কিয়ামপিসি গ্রামের অধিবাসী মোহাম্মদ মুতুম্বা নামক এক ইমাম নারী ভেবে বিয়ে করেছিলেন একজন পুরুষকে। ইসলামি নিয়ম মেনে বেশ ঘটা করেই বিয়ে হয়েছিলো। কিন্তু বিয়ের পর জানতে পারেন তিনি যাকে বিয়ে করেছেন সে নারী নয়, পুরুষ। বিয়ের পর একসাথেই থাকছিলেন তারা। কিন্তু মাসিকের অযুহাতে মুতুম্বাকে ঘনিষ্ঠ হতে দেয়নি ছদ্মবেশী স্ত্রী। খবর ডেইলি মেইল।

সম্প্রতি প্রতিবেশীর ঘরে দেয়াল টপকে ঢুকে টেলিভিশন চুরি করেন ইমাম মুতুম্বার ছদ্মবেশী স্ত্রী। পরে তার বিরুদ্ধে চুরির থানায় অভিযোগ করা হয়।

কীয়োঙ্গা থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান, চুরির অভিযোগে ইমামের স্ত্রীকে থানায় তল্লাশীর জন্য আনা হলে দেখা যায় তিনি আসলে নারী নন পুরুষ। তার বক্ষবন্ধণীতে কাপড় গোজা ছিল। বিষয়টি ইমাম মুতুম্বাকে জানানো হলে তিনি হতবাক বনে যান।

তদন্তে জানা যায়, নারীর ছদ্মবেশে থাকা ঐ পুরুষের নাম রিচার্ড তুমুসাবি। সে পেশায় একজন চোর। জিজ্ঞাসাবাদে সে পুলিশকে জানায়, ইমাম মুতুম্বার টাকা ও সম্পদ হাতিয়ে নিতেই নারী সেজে তাকে বিয়ে করা।

মুতুম্বার সাথে মসজিদে কাজ করা আমিসি কিলিঙ্গা জানান, ঐ চোরের গলা ছিল খুব সুমিষ্ট। সে একজন নারীর মতোই হাঁটাচলা করতো। আমাদের সবাইকে সে বোকা বানিয়েছে।

এদিকে মসজিদ কর্তৃপক্ষ মুতুম্বাকে বহিষ্কার করেছে। এর কারণ হিসেবে মসজিদের প্রধান ইমাম শেখ ইসা বুসুলওয়া জানান, ধর্মীয় বিশ্বাসে যাতে আঘাত না আসে সে জন্য মুতুম্বাকে ইমামের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।