ডেস্ক : আবারো জম্মু-কাশ্মীরের ভারত-পাক সীমান্তে তুমুল উত্তেজনা শুরু হয়েছে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হামলায় তিন ভারতীয় সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আরও পাঁচজন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে পৃথক ঘটনায় তারা নিহত হয়েছেন। এ খবর জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভি।
তবে পাকিস্তানের কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।
বুধবার রাত থেকেই গোলাগুলির যুদ্ধ শুরু হয়েছে, যা শুক্রবার পর্যন্ত চলমান রয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। গুলি, মর্টারের পাশাপাশি দূরপাল্লার কামানও ব্যবহার করা হচ্ছে। কার্গিল যুদ্ধের পর দেশ দুটির মধ্যে এত লম্বা সময় ধরে এ ধরনের কামান বা আর্টিলারি ফায়ার হয়নি বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

ডয়চে ভেলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মির সীমান্তে পাক বাহিনীর গুলির আঘাতে তিন ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছেন। এরপর থেকেই লড়াই চরম আকারে পৌঁছেছে।

ভারতীয় সেনারা অভিযোগ করেছেন, বুধবার রাত থেকেই যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে পাকিস্তান প্রথম এলওসি বা লাইন অফ কন্ট্রোলে গুলি চালাতে শুরু করে, পরে ছোড়া হয় মর্টার। তখন ভারতও পাল্টা গুলি ছোড়ে। বৃহস্পতিবার সকালে কুপওয়ারা জেলার নওগাম সেক্টরে নিহত হন দুই ভারতীয় সেনা এবং পুঞ্চ সেক্টরে আরো এক সেনার মৃত্যু হয়। এ ছাড়া আরো আহত হয়েছেন আরো ৫ জন। এরপরই আক্রমণের মাত্রা তীব্র আকার ধারণ করে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছে, বুধবার রাতে বিনা উসকানিতে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী মানকোট ও কৃষ্ণাঘাতি সেক্টরে গুলি বর্ষণ ও মর্টার শেল নিক্ষেপ করে। বৃহস্পতিবার উত্তর কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলার নওগাম সেক্টরে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর মর্টার শেলে দুই সেনা সদস্য নিহত হয়েছে। এ হামলায় আরও চারজন সেনাসদস্য আহত হয়েছে। এ হামলায় গুযরুতর আহতদের উদ্ধার করা হয়েছে।