নোতুন খবর.কম :
বগুড়ার শেরপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের ভাটরা গ্রামে পুকুরে গোসল করতে নেমে ডুবে জিমি খাতুন (১২) ও মিম আক্তার (১৩) নামের দুই স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। রোববার দুপুরের দিকে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলো-উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের ভাটরা গ্রামের জাহিদুল ইসলামের মেয়ে মোছা. জিমি খাতুন (১২) ও সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলার বেলতলা সুমন মিয়ার মেয়ে মোছা. মিম আক্তার (১৩)। তারা সম্পর্কে মামাতো ফুফাতো বোন। এছাড়া দু’জনই স্থানীয় ভীমজানি উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, মিমের বাবা-মা ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করেন। তাই ভাটরা গ্রামস্থ নানা সুমন আলীর বাড়িতে থেকে পড়াশোনা করছে। ঘটনার দিন বেলা ১১টার দিকে ওই দুই স্কুলছাত্রী অন্য শিশুদের সঙ্গে বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে নামে। একপর্যায়ে সাঁতার না জানা জিমি পানিতে ডুবে যায়। তাকে উদ্ধারে এগিয়ে যায় ফুফাতো বোন মিম। কিন্তু সেও পানিতে তলিয়ে গিয়ে নিখোঁজ হয়। এসময় অন্য শিশুদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদের খোঁজাখুঁজি শুরু করে। পাশাপাশি স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের কর্মীদের সংবাদ দেওয়া হয়। কিন্তু তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই নিখোঁজ শিক্ষার্থীদের মরদেহ ভেসে উঠে।

শেরপুর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পুকুরে গোসল করতে নেমে দুই বোন নিখোঁজ হয়েছে-এমন খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যাই। সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরাও ছিলেন। তবে আমরা ঘটনাস্থলে যাওয়ার আগেই মরদেহ পানিতে ভেসে উঠে। তাই সেখানে গিয়ে তাদের মৃত অবস্থায় দেখতে পেয়েছি। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা নেওয়া হবে।