ডেস্ক : পৃথিবীর আলো বাতাশ দেখার কয়েক মিনিটের পরে অপারেশন থিয়েটারের মধ্যেই তাকে কামড়ে রক্তাক্ত করে এক কুকুর। এতে ঘটনাস্থলে শিশুটির মৃত্যু হয়। সোমবার ভারতের উত্তরপ্রদেশের ফররুখাবাদ শহরের একটি প্রাইভেট হাসপাতালে মর্মান্তিক এ ঘটনাটি ঘটে।

জানা গেছে, বেসরকারি এক সংস্থায় কর্মরত বরি কুমার নামের এক ব্যক্তির গর্ভবতী স্ত্রীর প্রসব বেদনা ওঠায় সোমবার সকালে তাকে নিয়ে ওই হাসপাতালে যান।

তিনি জানান, প্রথমে হাসপাতালের নার্সিং স্টাফরা তার স্ত্রী কাঞ্চনের স্বাভাবিক ডেলিভারি হবে বলে তাকে জানান। তবে কিছুক্ষণ পরেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে জানায়, অস্ত্রোপচার করতে হবে।

রবি আরও জানান, এ কারণে কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা কাঞ্চনকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। এক ঘণ্টা পর অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে বলেও তাকে জানানো হয়।

রবি বলেন, ‘ আমার স্ত্রীকে ওয়ার্ডে দেয়া হলেও শিশুটি অপারেশন থিয়েটারেই ছিল।’

রবি জানান, কিছুক্ষণ পরেই হাসপাতালের এক কর্মী অপারেশন থিয়েটারে কুকুর ঢুকেছে বলে চিৎকার করতে থাকে। রবি বলেন, ‘বিপদ আঁচ করতে পেরে আমি দৌড়ে ওটিতে যাই। সেখানে গিয়ে আমার সন্তানকে মেঝেতে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি।সে তখন কোনো নড়াচড়া করছিল না।’

রবি জানান, শিশুটির বুকে আর চোখে কুকুরের কামড়ের দাঁত স্পষ্ট ছিল। ওই অবস্থায় কুকুরটি আবারও ওটিতে ঢোকার চেষ্টা করতেই তিনি সাহায্যের জন্য চিৎকার করতে থাকেন।

রবি বলেন, ‘ চিকিৎসক আর হাসপাতালের কর্মীদের অবহেলার জন্যই আমার সন্তানের এমন মৃত্যু হলো।’ তিনি আরও বলেন, ‘ এমন ঘটনার পরও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনো অনুশোচনা নেই। বরং তারা আমাকে টাকা নিয়ে চুপ থাকতে বলেছে।’

তিনি জানান, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, শিশুটি মৃত অবস্থাতেই জন্মেছিল। আর কুকুরটি ভুল কর ওটি ঢুকে পড়েছিল।

জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মহেন্দ্র সিং বলেছেন, ‘আমরা তদন্ত করেছি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলার জন্যই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে চিকিৎসকদের কমিটি।’

ফররুখাবাদ পুলিশ জানিয়েছে, হাসপাতালের মালিক ও কর্মীদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। সেই সঙ্গে হাসপাতালটি আপাতত বন্ধও রাখা হয়েছে। সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া