নোতুন খবর.কম : বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কিচক ইউনিয়নের উত্তর বেলাই কমিউনিটি ক্লিনিকের কমিউনিটি ক্লিনিক হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে ক্লিনিকে দেরিতে আসা ও পত্রিকার বিজ্ঞাপন তোলার কাজ করার অভিযোগ উঠেছে। এনিয়ে ক্ষোদ এলাকাবাসী অভিযোগ দিলেও কাজ হয়নি।
স্থানীয়দের অভিযোগ, মোহাম্মদ আলী চিকিৎসা সেবা ঠিকমতো না দিয়ে বগুড়া শহরে বিভিন্ন অফিস আদালতে পত্রিকার বিজ্ঞাপন সংগ্রহে ব্যস্ত থাকেন। জানা গেছে, তিনি দৈনিক আমার সংবাদ, দৈনিক খবরপত্র ও ইংরেজি দৈনিক দ্যা এশিয়ান এইজের, ঢাকা ট্রিবিউন ,দ্যা ট্রাইব্যুনাল পত্রিকার বিজ্ঞাপন সংগ্রহকারী হিসেবে কাজ করেন, যেটা বিভিন্ন অফিসে গিয়ে তার ভিজিটিং কার্ড দেখে প্রমাণিত হয়েছে।

জানা গেছে, এই কমিউনিটি ক্লিনিকে মোহাম্মদ আলী কমিউনিটি ক্লিনিক হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার, আজহার আলী স্বাস্থ্য সহকারী ও মিম আকতার পরিবার পরিকল্পনা সহকারী হিসেবে ৩ জন কর্মরত এবং তাদের ব্যবস্থাপনায় একজন আয়া খন্ডকালীন হিসেবে ঐ কমিউনিটি ক্লিনিকে মাসিক ৩০০ টাকা বেতনে চাকরি করে।

উত্তর বেলাই গ্রামের বাসিন্দা মোঃ শাহজালাল (৪৪) জানান, তারা ভালো স্বাস্থ্যসেবা পান না, ঔষধও ঠিকমতো পান না। স্বাস্থ্যকর্মী সকাল ১০টায় আসেন এবং দুপুর ১২টার মধ্যেই চলে যান। তিনি সাংবাদিকতা করেন এ ব্যাপারটা আমরা জানি।

স্থানীয় একটি মসজিদের ইমাম জহুরুল ইসলাম (৫০) জানান, তিনি আজকে ঔষধ আনতে গিয়েছিলেন ২টি ঔষধ (হিস্টাসিন ও ভিটামিন) পেয়েছেন, তবে স্বীকার করেন কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্যকর্মীরা দেরিতে আসেন এবং আগেই চলে যান। তিনি ঐদিন ৫০-৬০ জন রোগীকে দেখেছেন তাদের কথা শুনে ঔষধ দেওয়া সময় সাপেক্ষ। এই সংক্ষিপ্ত সময়ে এই রোগীগুলোকে ঔষধপত্র দেওয়া সম্ভব নয়।

কমিউনিটি ক্লিনিক সংলগ্ন বাড়ির খায়রুল আলম (৩০) জানান, মোহাম্মদ আলী ক্লিনিকে আসলেও দেরিতে আসেন এবং আগেই চলে যান। আর আজহার আলী ও মিম আকতার সপ্তাহে ৩ দিন আসেন।

ঐ ক্লিনিকের আয়া সাহেরা বেওয়া (৬০) জানান, তিনি মাসে ৩০০ টাকার ভিত্তিতে এই ক্লিনিকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করেন। ঔষধপত্র তার হেফাজতে থাকে। স্বাস্থ্যকর্মীরা আসলে তিনি ঔষধ বের করে দেন। তবে স্বাস্থ্যকর্মীরা ক্লিনিকে দেরিতে আসেন এবং আগে যান একথা স্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে, তিনি কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার হিসেবে কর্মরত আছেন বলে স্বীকার করেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা তারক নাথ কুন্ডু জানান, অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং একজন সরকারি কর্মচারি হিসেবে সার্ভিস রুলে কোনোভাবেই সাংবাদিকতা অথবা অন্য কোনো পেশার সাথে জড়িত থাকার সুযোগ নেই।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবির সাংবাদিকদের জানান, আমি স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। কমিউনিটি ক্লিনিক সম্পর্কিত তথ্য চেয়ে পাঠিয়েছি এবং সরকারি বিধি মোতাবেক অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সিভিল সার্জন (বগুড়া) ডাঃ মোঃ গওসুল আজিম চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, অফিসে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত নিরবিচ্ছিন্নভাবে থাকতে হবে। কোন কারণে থাকতে না পারলে কাউকে দায়িত্ব দিয়ে ছুটি নিতে পারে কিন্তু কোনভাবেই বন্ধ রাখা যাবে না। সরকারি চাকুরিরত কেউ অন্য কোন পেশায় থাকতে পারবে না। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।