গাবতলী (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি এএইচ আজম খানের সহধর্মিনী ও উপজেলা চেয়ারম্যান ও বগুড়া পৌর আ’লীগের সভাপতি রফি নেওয়াজ খান রবিনের শ্বাশুরী এবং বিগত সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৭আসনে স্বতন্ত্র এমপি প্রার্থী ফেরদৌস আরা খান ইন্তেকাল করেছেন। (ইন্না—রাজিউন)। তিনি ডায়াবেটিস, এজমা ও হার্ডের সমস্যা থেকে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ঢাকাস্থ বাংলাদেশ স্পেশালাইজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এমতবস্থায় রবিবার বিকেল ৩টায় তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় (৬৩) বছর। পারিবারিকসূত্রে জানা গেছে, ফেরদৌস আরা খান প্রথমে এজমা সমস্যা থেকে হার্ডের সমস্যায় ভূগছিলেন। পরে তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এরপর তাঁকে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল থেকে চিকিৎসকের পরামর্শক্রমে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত মাসের ৯জুন ঢাকাস্থ বাংলাদেশ স্পেশালাইজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হলে ওই হাসপাতালেই আইসিইউতে কয়েকদিন লাইফ সাপোর্টে থেকে একটু সুস্থ্য হয়। প্রায় একমাস চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ৪জুলাই বিকেল ৩টায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে, এক মেয়ে, নাতী-নাতনীসহ অসখ্য গুনোগ্রাহী রেখে গেছেন।
সোমবার বাদযোহর গাবতলী উপজেলার রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের জাগুলী গ্রামে নিজবাড়ীতে তার নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হবে। ফেরদৌস আরা খান বিগত সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৭আসনে স্বতন্ত্র এমপি প্রার্থী হয়ে ডাব মার্কা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিলেন। মরহুমা ফেরদৌস আরা খানের মৃত্যুতে তাঁর জামাই উপজেলা চেয়ারম্যান ও বগুড়া পৌর আ’লীগের সভাপতি রফি নেওয়াজ খান রবিন শ্বাশুরীর জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করেছেন। এদিকে ফেরদৌস আরা খানের মৃত্যুতে শোক সন্তোপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম ভূলন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক মিলু, যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল গফুর, সাংগঠনিক সম্পাদক মোমিনুল হক শিলু ও এসএম লতিফুল বারী মিন্টু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম মুক্তা ও রেকসেনা আকতার, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজার রহমান পাইকার, সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিলুসহ উপজেলা ও পৌর এবং মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।