নোতুন খবর. কম :
বগুড়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্টেট এবং বেঞ্চ সহকারীর সাথে অসদাচরন করায় আদালত পুলিশ এক আইনজীবী আটকে রাখার পর সমঝোতা করে ছাড়িয়ে নিয়ে এসেছেন বারের নেতারা। ঘটানাটি ঘটেছে বুধবার আদালত শুরু হওয়ার পর।
চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজেস্টেড আদালতের বেঞ্চ সহকারী মাহবুবুল আলম জানান, এ্যাড আতিক মাহমুদ একটি মামলা করে। সেই মামলার আদেশ কি হয়েছে জানতে চায়। আমি বলি স্যার এখনও আদেশের কপি দেয়নি। তাই কিভাবে দিব। এ নিয়ে হৈ চৈ শুরু করে এবং মারতে নেয়। তখন স্যার চলে এসে ঘটনা দেখে। এরই মাঝে আদালতের পুলিশ চলে এসে তাকে অবরুদ্ধ করে। পরে বার সমিতির নেতারা এসে সমঝোতা করে নিয়ে যায়।
এ্যাড আতিক মাহমুদ জানান, মামলার আদেশ দেখতে পেশকার দুই তিন শ টাকা দাবী করে। এ নিয়ে কথোপকথন হয়।
বগুড়া বারের সাধারন সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, এ্যাড আতিক মাহমুূদ এর আগেও তিনবার আদালতে এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে।
ভবিষ্যতে এ্যাড আতিক আর কোন এ ধরনের ঘটনা ঘটাবে না বলে আমরা বলে তাকে নিয়ে এসেছি। আর কিছু করলে আমরা যাব না।
জুডিশিয়াল আদালতের ওসি অশোক কুমার সিংহ জানান, ওই আইনজীবীর সাথে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। পরে আইনজীবী নেতারা সমঝোতা করেছে।