নোতুন খবর.কম :
শ্বাসত বাঙ্গালীর হাজার বছরের ইতিহাসের সুত্র ধরে বগুড়ার বিভিন্নস্থানে নবান্ন উপলক্ষ্যে বিভিন্ন হাট-বাজারে বসেছে ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা। নবান্ন উৎসব বলতে নতুন আমন ধান কাটার পর সেই ধান থেকে প্রস্তত চালের প্রথম রান্না উপলক্ষ্যে আয়োজিত উৎসব। এ উৎসবের প্রধান আকর্ষণ হরেক রকম মাছের ক্রয়-বিক্রয়। এছাড়া মেয়ে-জামাই ও অন্যান্য আতœীয় স্বজনদের বাড়িতে নিয়ে এসে বাহারি পিঠা-পায়েসসহ নানা রকমের সুস্বাদু খাবার পরিবেশন করা হয়। পঞ্জিকা অনুসারে আজ মঙ্গলবার পয়লা অগ্রহায়ণ হওয়ায় এ এলাকার সনাতন ধর্মাবলম্বীরা নবান্ন উৎসব পালন করছে। এ উৎসবকে ঘিরে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও মাছের মেলা বসে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে।
সরেজমিনে মাছের মেলায় গিয়ে দেখা গেছে, সারি সারি মাছের দোকান। সেখানে থরে থরে সাজানো রুই, কাতলা, মৃগেল, চিতল, সিলভার কার্প, বিগহেড, আইড়, বোয়ালসহ হরেক রকমের মাছ। লোকজন ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে কিনছেন এসব মাছ। কোন কোন মাছ বিক্রেতারা বিশালাকৃতির মাছগুলো মাথার ওপর তুলেধরে ক্রেতাদের আকর্ষণের চেষ্টা করছে।
মাছ বিক্রেতা শামীম হোসেন বলেন, নবান্ন উৎসবকে ঘিরে বড় বড় মাছ বাজারে বিক্রি করতে এনেছি। আমার দোকানে এবার ১৪-১৫ কেজি ওজনের বিগহেড মাছ রয়েছে। এছাড়া বড় বড় রুই ও কাতলা মাছ আছে।
দোকানি মোস্তফা আলম জানান, মাছের আকার ভেদে বিভিন্ন দামে মাছ বিক্রি হচ্ছে। বিগহেড ও সিলভার কাপ ১৫০/- থেকে ৩৫০/- টাকা, রুই ও কাতলা ২০০ থেকে ৪০০ টাকা, চিতল ৪০০/- থেকে ৭০০/- টাকা ও বোয়াল ২৫০/-থেকে ৫০০/- টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
নাগরকান্দি গ্রামের মাছ ক্রেতা কুবির সরকার জানান, আমি কাতলা মাছ ৩৫০ টাকা কেজি, বিগহেড ৩০০ টাকা কেজি ও রুই ৩৫০/- টাকা কেজি দরে কিনেছি। এবার বাজারে চিতল, আইড় ও বোয়াল মাছ তেমন নাই।
মাছ কিনতে আসা মোঃ ওসমানগণি বলেন, হিন্দুদের এই নবান্ন উৎসব উপলক্ষ্যে বাজারে বড় বড় মাছ আসে। আমি ৮ কেজি ওজনের একটি কাতলা মাছ কিনেছি। বিগহেড, সিলভার কার্প, রুই, কাতলাসহ সবধরনেরর মাছের দাম ঠিক আছে।