নোতুন খবর.কম: “বিকশিত শিশু আলোকিত আগামী – সৃজনে উৎসবে মঞ্চ মোদের তরনী ” স্লোগানে ভোর হলো ও লিটল থিয়েটারের আয়োজনে ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বগুড়া টিএমএসএস এর সহযোগিতায় চার দিন ব্যাপি আন্তঃস্কুল নাট্যোৎসব – ২০১৯ বগুড়া জেলা পরিষদ মিলনায়তনে শুক্রবার বিকাল চার ঘটিকায় শুরু হয়। উক্ত অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বগুড়ার জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহম্মেদ। নাট্যোৎসবের প্রথম দিনে বনার্ঢ্য শোভাযাত্রা শেষে বেলুন উড়িয়ে মাননীয় জেলা প্রশাসক চার দিন ব্যাপি আন্তঃস্কুল নাট্য উৎসবের শুভ সূচনা করেন। দৈনিক করতোয়ার বার্তা সম্পাদক ও লিটল থিয়েটারের উপদেষ্টা প্রদীব ভট্টাচার্য্য শংকর এর সভপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ফয়েজ আহম্মেদ বলেন- শিশুদের সুন্দর ও সুস্থ্য মানসিকতায় বেড়ে উঠার জন্য সংস্কৃতি চর্চার কোন বিকল্প নেই। এজন্য শুক্রবারে কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার জন্য সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। আলোচনা সভার শুরুতে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন লিটল থিয়েটারের সভাপতি নাট্যজন তৌফিক হাসান ময়না। এসময় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বগুড়া সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সিদ্দিকী, নিশিন্দারা ফকির উদ্দীন স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান হায়দার আলী, বাংলাদেশ গ্রাম থিয়েটারের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য আব্দুল হান্নান, বাঙময় আবৃত্তি সংসদের সভাপতি দৌলতোজ্জামান, জেলা কালচারাল অফিসার শাহাদত হোসেন, ইউনিক পাবলিক স্কুলের চেয়ারম্যান তনছেন আলী প্রমুখ। উৎসবের প্রথম দিনে দুটি নাটক মঞ্চস্থ হয়। প্রথমে নিশিন্দারা ফকির উদ্দীন স্কুল এন্ড কলেজে পরিবেশন করেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত ও গাজী আশা ও সুমন ইসলামের নির্দেশনায় নাটক “রাজা ও রাজদ্রোহী”, কাহালু রেড রোড কেজি স্কুল পরিবেশন করে দ্বীজ কানাই এর রচনা ও জহুরুল ইসলাম বাদশার নির্দেশিত নাটক “মহুয়া”। সমস্ত অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন লিটল থিয়েটারের নাট্যকর্মি মন্দ্রিতা হাসান। শনিবার নাট্যপিপাসুদের জন্য থাকছে চারটি নাটক পরিবেশন করবে ইয়াকুবিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ওয়াই.এম.সি.এ স্কুর এন্ড কলেজ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ ও করতোয়া মাল্টিমিডিয়া স্কুল এন্ড কলেজ। সবার আমস্ত্রণ।