নোতুন খবর.কম :
বগুড়া গাবতলী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি (সদ্য বহিস্কৃত) ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মোঃ ফারুক আহম্মেদ তার বিরুদ্ধে পিতা ও মাতার করা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবী করেছেন।
মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়া প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তিনি এই দাবী করেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার বুদ্ধি প্রতিবন্ধী পিতা ও সহজ সরল মাকে দিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন করানো হয়েছে। কয়েকদিন আগে আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা এই কাজ করেছেন। যাতে সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন তথ্য দেয়া হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনের মূল উদ্দেশ্য ছিলো রাজনৈতিক ও সামাজিক ভাবে আমাকে হেয় প্রিতিপন্ন করা।
তিনি বলেন আমি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হওয়ায় গত ২৫ নভেম্বর স্বেচ্ছাসেবক লীগের পদথেকে পদত্যাগ করেছি।
তিনি বলেন, আমি গত ২ বার গাবতলী সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেছি। প্রতিবারই আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা বিএনপির প্রার্থীর পক্ষনিয়ে আমাকে পরাজিত করেছে। এই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরাই তার জনপ্রিয়তা ও নেতা কর্মীদের সাথে সম্প্রৃক্ততায় ঈশ্বার্ণিত হয়ে পরিবারকে দিয়ে এমন ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে বলে অভিযোগ করেন।
উল্লেখ্য:
গত ২৪ ডিসেম্বর
বগুড়া গাবতলী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ফারুক আহম্মেদের বিরুদ্ধে পিতা মাতাকে মারপিট, হত্যার হুমকিও দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়। বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে কান্না জড়িত কন্ঠে এমন অভিযোগ করেন ফারুকের পিতা গাবতলীর উনছুরকী গ্রামের তোজাম্মেল ফকির ও তার মা ফাতেমা বেগম।
এরপর গত ২৭ ডিসেম্বর দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে মোঃ ফারুক আহম্মেদ কে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি পদ হতে অব্যাহতি প্রদান করা হয় এবং সেই সঙ্গে গাবতলী উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটির সকল কার্যক্রম সাময়িক স্থগিত করা হয়।