নোতুন খবর. কম ঃ
বগুড়ার নন্দীগ্রামে উজ্জ্বল হোসেন (৩৫) নামের এক ব্যক্তিকে গণপিটুনিতে হত্যা করা হয়েছে।
নিহত উজ্জ্বলকে গরু চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ায় গনপিটুনী দিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের শেখের মারিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত উজ্জল হোসেন উপজেলার রায়পাড়া গ্রামের মৃত নইমুদ্দিনের ছেলে।

জানাযায়, উজ্জ্বলসহ চারজন বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে শেখের মারিয়া গ্রামে কৃষক বেলাল হোসেনের বাড়িতে যায়। তারা তালা কেটে গোয়াল ঘরে ঢুকে একটি গাভি চুরির চেষ্টা করেন। বাড়ির মালিক টের পেয়ে চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা ছুটে আসেন। তারা ধাওয়া করে উজ্জ্বল হোসেনকে আটক করলেও অপর তিনজন পালিয়ে যায়। এরপর বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা তাকে পিটিয়ে হত্যা করে।

ভাটরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোরশেদুল বারী জানান, সম্প্রতি শেখের মারিয়া গ্রামে গরু চুরি বেড়ে গেছে। গত দেড় মাসে বেলাল হোসেনের একটি গরু, জামাল হোসেনের দুটি গরু, অপর একজনের একটি গরু, মারিয়া বাজার থেকে দুটি রিকশা ভ্যান চুরি হয়। এসব চুরির সঙ্গে পেশাদার চোর কয়েকটি মামলার আসামি উজ্জ্বল জড়িত। বৃহস্পতিবার রাতে আবার বেলালের বাড়িতে গরু চুরির চেষ্টা করলে গ্রামবাসী চার চোরের মধ্যে উজ্জ্বলকে আটক করতে সক্ষম হন। পরে বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসীর পিটুনীতে উজ্জ্বল মারা যান।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি শওকত কবির জানান, গরু চুরির অভিযোগে গন পিটুনীতে মারা যাওয়ার খবর শুনে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত করা হয়েছে। উজ্জলের বিরুদ্ধে নন্দীগ্রামসহ বিভিন্ন থানায় হত্যা ও ডাকাতি মামলা রয়েছে। তবে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরর প্রস্তুুতি চলছে।