নোতুন খবর. কম ঃ
পদবী গায়েব করা বগুড়া নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামীলীগের তথা কথিত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে গায়েবী পদথেকে অপসারণ ও উপজেলা পরিষদে দলীয় চেয়ারম্যান রেজাউল আশরাফ জিন্নার বিরুদ্ধে মিথ্যা বাওেনায়াট ভিত্তিহীন অপবাদ, লাঞ্চিত করা এবং সাবেক সভাপতির ছেলে মোত্তারিনের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ, মামলা ও মারধরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। রোববার দুপুরে বগুড়া প্রেসক্লাবে উপজেলা আওয়ামীলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা এই সংবাদ সম্মেসলনের আয়োজন করে। এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সদ্য দায়িত্বপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ-অধ্যাপক মোঃ আজিজুর রহমান।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ৩ বছর হয় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মৃত্যু বরণ করেছেন। আর গত মার্চ মাসে সাধারণ সম্পাদক চাল চুরীর দায়ে বহিসাকারাদেশ পান। একই কায়দায় দুই ব্যক্তি মোঃ রফিকুল ইসলাম ও মোঃ আনোয়ার হোসেন রানা যথাক্রমে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকব পদবী ঘোষিনা করে দলের কোনরুপ সভা না করে বিভিন্ন জায়গায় তদবীর সহ অপকর্মের সাথে জড়িত হয়েছে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আওয়ামীলীগের কোন পদ খালিহলে কার্য়নির্বাহী সংসদ শুন্য হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে কো অপশন বা মনোনয়নের মাধ্যমে উক্ত শুন্যপদ পূরন করিবে।
তিনি বলেন, ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ১৯৭১ সালে ছিলেন মুসলীম লীগের দোসর এবং তার ঔরসজাত সন্তান বর্তমানে বিএনপির দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা। পক্ষান্তরে সাধারণ সম্পাদক জাতীয় পার্টির প্রডাক্ট। ১২ সালের কাউন্সিলের কারো দোয়ার বরকতে একবারে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। ১২ সালের হাইব্রিড নেতা এখন স্বঘোষিত ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হয়ে আওয়ামীলীগের প্রবিন, নবীন, ত্যাগী ব্যক্তিদের মারধরসহ দলের মধ্যে দল সৃষ্টি করছে।
তিনি উল্লেখ করেন, ১৯৮৬ সালে বগুড়া ৪ আসনে নৌকা জয়লাভ করলে এই আনোয়ার হোসেন রানা জাতীয় পার্টির বিভিন্ন কর্মীদের নিয়ে মামদুদ চৌধরিীকে এমপি বানিয়ে দিয়ে রাস্তায় রাস্তায় মহিলা নিয়ে আনন্দ করে। ১৯৯৬ হতে ২০০১ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় জাতীর পিতাকে বঙ্গবন্ধু বলে কটুক্তিসহ আমাদের নেতৃকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে। তাই বাধ্য হয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সামাদের সভাপতিত্বে কমিটির সভায় গঠণতন্ত্রের ১০৮ পৃষ্ঠায় ২৪ (খ) ধারামতে উপজেলা কমিটির ২ নং সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সহ-অধ্যাপক মোঃ আজিজুর রহমানকে সভাপতির শুন্য পদে ও কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আফজাল হোসেনকে সাধারণ সম্পাদককের শুন্য পদে কো অপশন করে সকল সদস্যের সমর্থন পূর্বক দায়িত্ব অর্পন করছেন। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জানানোর পর তাদের দলীয় ভারপ্রাপ্ত পরিচয় না দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।