নোতুন খবর.কম :
বগুড়া পৌরসভার ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মেজবাহুল হামিদের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারী, ওয়ার্ডের উন্নয়ন কর্মকান্ডের নামে টাকা আত্নসাত, খুন জখমের অভিযোগ তুলেছেন ওয়ার্ডের বাসিন্দা ঝোপগাড়ী ভুরার পাড়া এলাকার আলহাজ্ব তফিজার রহমানের ছেলে সুজ্জাতুল আলম সুজাত। সোমবার বগুড়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন।


লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, মাটিডালি হতে ধরমপুর ঝোপগাড়ী এলাকার প্রায় ৪০ হাজার মানুষের যাতায়াতের জন্য সুবিল খালের উপর একটি ব্রিজ ছিলো। ব্রিজটির একপাশ্বে একটু ভেঙ্গে গেলে সেটি সংস্কার না করে কাউন্সিলর মেজবা প্রায় ১৫ মাস আগে ব্রীজটি ভেঙ্গে এর এর মূল্যবান জিনিসগুলি কয়েক লাখ টাকায় বেচে পকেটস্ত করে। ব্রীজের পাশদিয়ে বাঁশের ও কাঠের একটি নরবরে সাকো দিলেও তা ব্যবহারের অযোগ্য। ব্রীজটি পূণ:নির্মানের জন্য কাউন্সিলর মেজবাকে বললেও তিনি কর্ণপাত করেননা।
তিনি বলেন, কাউন্সিলর মেজবা ও তার বাহিনী অর্থাৎ ঝোপগাড়ীর পিন্টু লিটন, উজ্জ্বল ও তাদের দলীয় মাস্তান শ্রেণীর লোকদের সহযোগিতায় আমাদেরকে হুমকি দিয়ে আসছে। ইতিপূর্বে উক্ত কাউন্সিলর তার হীন স্বার্থের জন্য তার দলবলসহ মাটিডালীর ইমদাদুল হকের ছেলে মাসুককে হত্যা করেছে। কাউন্সিলরের বিভিন্ন অনিয়ম অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় বর্তমানে আমরা জীবনের নিরাপত্তাহিনতায় ভূগছি। তিনি সংশ্লিষ্ট সকল মহলের কাছে এর প্রতিকার চেয়েছেন।