ডেস্ক : কেরালা এবং পাঞ্জাবের পর এবার ভারতের রাজস্থানেও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাস হয়েছে। শনিবার রাজস্থানের বিধানসভায় প্রস্তাবটি পাস হয়। প্রস্তাবটি পাস হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নাগরিকত্ব আইনের পক্ষে স্লোগান দিতে দিতে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন কয়েকজন বিজেপি বিধায়ক। খবর এনডিটিভির

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ থেকে ২০১৫ সালের আগে ভারতে আশ্রয় নেওয়া শুধু অমুসলিম শরণার্থীদেরই নাগরিকত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

এই আইনটি পাস হওয়ার পর থেকেই ভারতেজুড়ে এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ চলছে। বিরোধীদের মতে, এই আইন বৈষম্যমূলক এবং সংবিধানে বর্ণিত দেশের ধর্মনিরপেক্ষ ভাবমূর্তির পরিপন্থী। দেশের বিরোধী দলগুলি কেন্দ্রকে এই আইন প্রত্যাহার করার কথাও বলেছে।

এই সপ্তাহের শুরুতে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের উপর স্থগিতাদেশ দেওয়ার আবেদন খারিজ করে দেন। আদালত বলেছেন, তারা সরকার পক্ষের জবাব না শুনে সিএএ নিয়ে কোনো স্থগিতাদেশ দেবেন না। আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে কেন্দ্রের জবাব তলব করেছেন দেশটির শীর্ষ আদালত।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে স্থগিতাদেশ চেয়ে সুপ্রিম কোর্টে ১৪৩টি আবেদন জমা পড়ে। শীর্ষ আদালতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে করা আবেদনগুলিতে দাবি করা হয়েছে, সিএএ অবৈধ এবং সংবিধানের মূল কাঠামোর পরিপন্থী।

এতে আরও বলা হয়েছে, আইনটি সাম্যের অধিকারেরও পরিপন্থী। কারণ এটি ধর্মের ভিত্তিতে নাগরিকত্ব প্রদান করার কথা বলে।

এর আগে কেরালা সরকার দেশের প্রথম রাজ্য সরকার হিসেবে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় প্রস্তাব পাস করে, পরে ওই আইনকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টেরও দ্বারস্থ হয় তারা।

কেরালার পর দ্বিতীয় রাজ্য হিসেবে এই আইন তাদের রাজ্যে কার্যকর না করার সিদ্ধান্ত নেয় পাঞ্জাবও। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হলো রাজস্থান।