নোতুন খবর.কম : বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ৩ বিদেশ ফেরতের খবর প্রকাশ হওয়ার পরেই বগুড়ায় রোববার রাত থেকেই বেড়েযায় মাস্ক এর দাম। ১০ টাকার মাস্ক একলাফে চলেযায় ২০ টাকায়। আজ সোমবার ১০ টাকার সেই মাস্ক লাইন ধরে ক্রেতাদের কিনতে হয় ৫০ টাকায়। শুধু মাস্ক নয়, জীবানুরোধী অন্য সামগ্রীর দাম ও বেড়ে যায়। বিক্রেতাদের এমন অধিক মূল্য নেয়ার কারসাজির খবর পেয়ে অভিযানে নামে ভ্রাম্যমান আদালত।
দেখাগেছে, অধিক দামে মাস্ক সহ জিবানুনিরোধ অনান্য সামগ্রী বিক্রেতারা নিজেদের লুকিয়ে ফেলেছে। ভ্রাম্যমান মাস্ক ব্যবসায়ীরা অভিযানের কথা শুনে দৌরি পালিয়ে গেছে।
বগুড়ার কাহালু উপজেলা থেকে শহরে আসা তাছলিমা নাছরিন ও ধুনট উপজেলা থেকে আসা আব্দুস সালাম জানান, ১০ টাকার মাস্ক দাম নেয়া হচ্ছে ৫০ টাকা।
বগুড়ায় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সোমবার বিকালে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালিত হয়েছে। এসময় ভ্রাম্যমান মাস্ক বিক্রেতারা শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে দ্রæত পালিয়ে যায়। জীবানুরোধী সামগ্রী অধিক দামে বিক্রিতেও দোকানদাররা সজাগ হয়। দু’টি দোকানে জরিমানা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাসরিন আকতার ও রোমানা রিয়াজ জানান, ভোক্তা অধিকার আইনে বিসমিল্লাহ টুপিঘর ও রিগ্যান গার্মেন্সে অভিযান চালিয়ে মোট ৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মাস্ক ও জীবানুরোধী অন্য সামগ্রী যে সব দোকানে বিক্রি হয় , সেখানে তা অধিক মুল্যে বিক্রি হলে তার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানিয়েছেন। তারা শহরের কাঠালতলা সাতমাথা সহ আরো কয়েকটি স্থানে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করা হয়। এধরনের অভিযান অব্যহত থাকবে।