ডেস্ক :
কুমিল্লার লাকসাম পৌরসভায় মেয়র কাউন্সিলরসহ সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ১০ জানুয়ারি রবিবার এ পৌরসভায় ছিল মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে প্রতীদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিলে আওযামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী অধ্যাপক আবুল খায়েরসহ সকল কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়।

লাকসাম পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র বাছাইকালে কাউন্সিলর পদে ২১ জন প্রার্থীর সকলের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষিত হয়। এর মধ্যে ৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর কোনও প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না। ফলে সাধারণ ওয়ার্ডে ৬ কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত আসনে ৩ মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। রবিবার প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৫, ৬ ও ৭নং ওয়ার্ডের অপর ৭ প্রতিদ্বন্দ্বী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিলে সকলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হন।
লাকসাম উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বে থাকা মো. কামরুল হাসান জানান, আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য লাকসাম পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র, ৯টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর এবং সংরক্ষিত তিন নারী কাউন্সিলর পদে একাধিক প্রার্থী না থাকায় তারা বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এই পৌরসভায় আর নির্বাচন অনুষ্ঠানের দরকার পড়বে না।

লাকসাম পৌরসভা নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক মেয়র অধ্যাপক আবুল খায়ের।
সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১নং ওয়ার্ডে মোহাম্মদ উল্লাহ, ২নং ওয়ার্ডে খলিলুর রহমান, ৩নং ওয়ার্ডে অ্যাডভোকেট মাসুদ হাছান, ৪নং ওয়ার্ডে মো. আবদুল আজিজ, ৫নং ওয়ার্ডে মুনছুর আহমেদ মুন্সী, ৬নং ওয়ার্ডে আবু সায়েদ বাচ্চু, ৭নং ওয়ার্ডে মো. শাহজাহান মজুমদার, ৮নং ওয়ার্ডে মো. দেলোয়ার হোসেন, ৯নং ওয়ার্ডে গোলাম রাব্বানী, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১, ২, ৩নং ওয়ার্ডে নাসিমা আক্তার, ৪, ৫, ৬নং ওয়ার্ডে নাসিমা সুলতানা ও ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ডে মুশফিকা আলম মিতাও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।