ডেস্ক : শরীরের ভেতরে কোন রোগ দানা বেঁধে আছে, তা অসুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত আমরা জানতে পারি না। বিশেষজ্ঞদের মতে, অসুখ হওয়ার আগে শরীর নিজ থেকেই জানান দেয়। মানুষের দায়িত্ব শুধু লক্ষণগুলো খেয়াল করা। একটু সচেতন থাকলেই বড় ধরনের আশঙ্কা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এ রকম ১০টি শারীরিক লক্ষণের কথা হলো- যা দেখে বুঝবেন আপনি অসুস্থ।

১. পা কামড়ানো

খেয়াল করে দেখবেন আপনি যখন বিশ্রাম নিতে যান তখন আপনার পা কামড়ায় কি না। একে রেস্টলেস লেগ সিনড্রোম বলে। মস্তিষ্কের নিউরন সংশ্লিষ্ট সমস্যার কারণে এ রোগ হয়। এই রোগ বিশ্রামের সময় সবচেয়ে বেশি পীড়া দেয়। পা এত বেশি কামড়ায় যে তা স্থির রাখা সম্ভব হয় না। তাই আপনার যদি এ ধরনের কোনো সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে দেরি না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

২. চামড়া মোটা হয়ে যাওয়া

চামড়ার সমস্যা কখনই অবহেলা করবেন না। আপনার চামড়া মোটা হয়ে গেলে বুঝবেন আপনার শরীরের ভেতর কোনো সমস্যা হয়েছে। হঠাৎ চামড়া মোটা হতে শুরু করলে বুঝবেন শরীরে হরমনজনিত সমস্যা হয়েছে কিংবা কোনো মারাত্মক এলার্জি আছে। ডাক্তারের কাছে যেয়ে রক্ত পরীক্ষা করে সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে ভুলবেন না।

৩. হাতের লেখা পরিবর্তন, ঘ্রাণশক্তি হ্রাস ও দুঃস্বপ্ন

আপনারা কি পার্কিনসন ডিসিজের কথা শুনেছেন? হয় তো শুনেছেন কিন্তু এর লক্ষণগুলো জানেন কি? এ রোগটিও একটি মস্তিষ্কজনিত সমস্যা। এর কারণে মানুষের হাতেল লেখা পাল্টে যায়, হাত কাঁপে, ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে। এর অন্যতম লক্ষণ হচ্ছে নিয়মিত দুঃস্বপ্ন দেখা। এ ছাড়াও ঘ্রাণশক্তি হ্রাস ও আপনার কথাবার্তা বলার ভঙ্গিমায় পরিবর্তন আসে।

৪. রাগ ও আক্রমণাত্মক ব্যবহার

সব সময় যে মানুষ চারিত্রিক কারণে রাগ ও আক্রমণাত্মক ব্যবহার করে বিষয়টি এমন নয়। অনেক সময় মানুষ হতাশা থেকেও এ ধরনের ব্যবহার করে থাকে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, হতাশা থেকে মানুষ সব সময় মন খারাপ করে বসে থাকবে এমন নয়। অনেক সময় মানুষ হতাশায় পড়লে তীব্র রাগ ও আক্রমণাত্মক ব্যবহার করে থাকে।

৫. অতিরিক্ত ঘুম

সাধারণ সময়ের তুলনায় অতিরিক্ত ঘুম হলে অবশ্যই ডাক্তার দেখাবেন। কারণ ক্লান্তির কারণে সব সময় অতিরিক্ত ঘুম আসে না। শরীরে এমন অনেক রোগ থাকে যার কারণে মানুষ অতিরক্ত ঘুমায় বা ঘুমের অনুভব হয়। হাইপারসোমনিয়া নামক রোগের কারণে এ রকম হয়। এ রোগ হয় বেশি রাত পর্যন্ত জাগনা থাকলে অথবা অতিরিক্ত মদ্যজাত দ্রব্য সেবনে।

৬. চোখের রঙ পরিবর্তন

আপনার চোখের মণির চারপাশে কি ছাই রঙের কোনো বৃত্ত আছে? তাহলে বুঝে নিবেন আপনার শরীরে কোলেস্টরলের মাত্রা অনেক বেশি। এক গবেষণায় দেখা গেছে, ৪৫ বছরের নিচে যাদের চোখেই ছাই রঙের বৃত্ত আছে, তাদের শরীরেই অতিরিক্ত কোলেস্টরলের মাত্রা পাওয়া গেছে।

৭. অতিরিক্ত লবণ খাওয়া

আমরা অনেকেই লবণ খেতে ভালোবাসি। কিন্তু খেয়াল রাখবেন অন্য স্বাদের খাবার রেখে আপনার কি শুধু লবণ দেয়া খাবারই ভালো লাগে কি না। যদি এমন কিছু হয় তাহলে নিজেকে প্রশ্ন করুন আপনি আসলেই এমন করছেন নাকি। কারণ মানুষ তখনই অতিরিক্ত লবণ খেতে পছন্দ করে যখন শরীরে আয়রনের ঘাতটি ও পানিশূণ্যতা থাকে। এ ছাড়া রক্তস্বল্পতা থেকেও মানুষ অতিরিক্ত লবণ খেতে শুরু করে।

৮. অতিরিক্ত ক্লান্তি ও ভুলে যাওয়া

কোনো কাজ শুরু করার আগেই যদি আপনি ক্লান্তি অনুভব করেন এবং যেকোনো বিষয় ভুলে যান তাহলে আপনার শরীরে রোগ দানা বেঁধে আছে। থাইরয়েড হরমোন ঘাটতির জন্য মানুষের এ ধরনের সমস্যা হয়।

৯. সব সময় তৃষ্ণার্ত অনুভব করা

বিশেষজ্ঞরা বলেন, তৃষ্ণার্ত অনুভব করা ভালো। তাদের মতে, তৈলাক্ত ও লবণাক্ত খাবার খেলে শরীর অতিরিক্ত পানি শোষণ করে থাকে। এ ছাড়া ডায়বেটিস ও গর্ভাবস্থায় মানুষ অতিরিক্ত তৃষ্ণা অনুভব করে।

১০. বরফ কামড়াতে ইচ্ছে করা

গরমের সময় অনেকের বরফের সংস্পর্শে থাকতে ভালো লাগে। কিন্তু সব সময় বরফ কামড়ানোর ইচ্ছা একটি আপনার শরীরে রোগের উপস্থিতি জানান দেয়। শরীরে আয়রনের ঘাটতির কারণে মানুষের মধ্যে এ ধরনের অভ্যাস তৈরি হয়। এ ছাড়া রক্তস্বল্পতার কারণেও এ সমস্যা তৈরি হয়।