সুদর্শন কর্মকার, রাণীনগর (নওগাঁ) প্রতিনিধি : নওগাঁর রাণীনগরের সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে জাল সনদে চাকুরীর অভিযোগ ওঠেছে সহকারী (ধর্ম) শিক্ষক আব্দুস সোবহান মৃধা এর বিরুদ্ধে । আর এই অভিযোগ তুলেছেন ওই বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক মোরশেদা বানু। তিনি সনদগুলো যাচাইপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
বিভিন্ন দপ্তরে দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়,রাণীনগর সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক (শূন্য)পদে আব্দুস সোবহান মৃধা গত ২০১৪ সালে আবেদন করেন। ওই সময় তিনি জাল সনদপত্র দিয়ে চাকুরী নেন। অভিযোগে বলা হয়,তার জন্ম তারিখ থেকে দাখিল পাশের সময়সীমা মাত্র ১৩ বছর। আর মাত্র ১৩ বছর বয়সে আব্দুস সোবহান দাখিল পাশ দেখান। এছাড়া সনদটি ঘোষা-মাজা রয়েছে। তাছাড়া রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয় বেগম রোকেয়া হলে শুধু মাত্র ছাত্রীদের জন্য হলেও তিনি ছাত্র হিসেবে (পুরুষ) কিভাবে ওই হল থেকে ইসলামী ষ্টাডিস বিষয়ে দ্বিতীয় শ্রেনীতে উর্ত্তীণ হয়ে স্নাতক কলা (সম্মান) পাশের সনদপত্র পেয়েছেন তা নিয়ে চরম সন্দেহ হওয়ায় তার সনদগুলো যাচাই-বাছাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ওই বিদ্যালয়ের (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক মোরশেদা বানু মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী,স্থানীয় সংসদ সদস্য,মহাপরিচালক,দূর্নীতি দমন কমিশন রাজশাহী অঞ্চল,জেলা প্রশাসক,জেলা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ ১২টি দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এব্যাপারে অভিযোগকারী (ভারপ্রাপ্ত) প্রধান শিক্ষক মোরশেদা বানু বলেন, একটু পরে হলেও সনদপত্রগুলো আমার নজরে এসেছে । তাই তার সনদগুলো জাল বলে সন্দেহ হওয়ায় যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
সহকারী শিক্ষক আব্দুস সোবহান মৃধা বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য নয়।
রাণীনগর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল বলেন,সরকারী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (ধর্ম) আব্দুস সোবহান এর বিরুদ্ধে জাল সনদে চাকুরীর লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটি তদন্ত কমটি গঠন করে অভিযোগটি ক্ষতিয়ে দেখা হবে। ঘটনার সত্যতা মিললে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।