ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন দেশে বেশ কিছু সামরিক মহড়া চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ধারণা করা হচ্ছিল, ইরান বা মধ্যপ্রাচ্যের কোনো দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে এসব মহড়া চালাচ্ছে ওয়াশিংটন। তবে সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে মার্কিন সাপ্তাহিক নিউজউইক দাবি করেছে, মধ্যপ্রাচ্য বা ইরানের বিরুদ্ধে নয়, বরং রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে এসব সামরিক মহড়া চালিয়েছে।

শুক্রবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, পরমাণু সমঝোতা চুক্তি নিয়ে ইরানের উত্তেজনার মধ্যেই গত বছর মে থেকে সেপ্টেম্বরের বিভিন্ন সময় বিশ্বের ২৯টির বেশি দেশে ৯৩টি সামরিক মহড়া চালায় ওয়াশিংটন।

তবে এসব সামরিক মহড়া ইরান বা মধ্যপ্রাচ্যের কোনো দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে চালানো হয়নি। বরং রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবেই এসব মহড়া চালানো হয়েছে বলে প্রতিবেদনে দাবি করা হয়।

নিউজউইক বলেছে, ২০১৪ সালের মার্চে ইউক্রেনের কাছ থেকে ক্রিমিয়া দখল করে নেয় রাশিয়া। এর পরিপ্রেক্ষিতে দেশটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের উত্তেজনা চরমে পৌঁছায়। এমনকি দুই দেশই তখন তাদের সামরিক তৎপরতা বিপুল পরিমাণে বাড়িয়েছে। এর মধ্যে ওয়াশিংটনের চালানো এসব সামরিক মহড়াকে মস্কোর সঙ্গে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে ধারণা করা হচ্ছে।

এর মধ্যেই গত বছর অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনী জানায়, ২০২০ সালের এপ্রিল ও মে মাসে ইউরোপে একটি বৃহৎ সামরিক মহড়া চলাবে তারা।

এ মহড়ার বিষয়ে ইউএস ইউরোপিয়ান কমান্ড (ইউরোকম) জানায়, এতে জার্মানি ও পোল্যান্ডসহ মোট ১০টি ইউরোপীয় দেশে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এ মহড়ায় মার্কিন সামরিক বাহিনীর এক ডিভিশন পদাথিক সেনা, তিন ব্রিগেড ট্যাংক ও অন্য বাহিনীর ৩৭ হাজার সেনা অংশগ্রহণ করবে।