নোতুন খবর.কম :
বগুড়া ধুনটে লকডাউনে মাদ্রাসা খোলা রাখার প্রতিবাদ করাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ভাঙচুর ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন।
বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) সকাল ৯টার দিকে বগুড়ার ধুনট উপজেলার সোনাহাটা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, করোনা সংক্রমণ রোধে বৃহস্পতিবার থেকে সারাদেশে সাত দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় ধুনটের সোনাহাটা বাজার এলাকায় লকডাউন চলছে। সকালে জিনিয়াস মডার্ন মাদ্রাসা নামের একটি মাদরাসা খোলা রেখে পাঠদান কার্যক্রম চালানো হয়। এতে স্থানীয় এক ব্যবসায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখার প্রতিবাদ করেন। বিষয়টি নিয়ে মাদরাসা পরিচালনাকারী দের সঙ্গে ব্যবসায়ীর কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ভাঙচুর ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে সোনাহাটা বাজারের মন্ডল স্টোরের মালিক আশিকুর রহমান (৩৫), মহসিন আলম (৪২) ও গোলাম মোস্তফাসহ পাঁচজন আহত হন। হামলাকারীরা মন্ডল স্টোর নামে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানটি ভাঙচুর করেন।

আহতরা ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ বিষয়ে আশিকুর রহমান মানিক বলেন, লকডাউন অমান্য করে মাদরাসা খোলা রেখে সেখানে পাঠাদান করানো হচ্ছিল। আমি এর প্রতিবাদ করি। এতে মাদরাসা পরিচালনাকারীরা আমাকে পিটিয়ে আহত এবং আমার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করেন।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে মহসিন আলম বলেন, ‘পূর্ব বিরোধের জের ধরে ব্যবসায়ী আশিকুর রহমান মানিক ও তার লোকজন আমাকে মারধর করেছেন।’

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।