ডেস্ক :
করোনাকালের হজ, তাই সর্বোচ্চ সাবধানতা অবলম্বন করছে সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ। মক্কার মসজিদুল হারাম ও হজ পালনের স্থানগুলোতে প্রবেশ করলে ২ লাখ ৩০ হাজার টাকা জরিমানা (১০ হাজার রিয়াল) করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সৌদি আরব সরকার।
সৌদি আরবের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সোমবার (৫ জুলাই) থেকে জরিমানার এই বিধান কার্যকর করা হবে। চলবে হজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত।

আরব নিউজের খবরে বলা হয়েছে, মক্কার মসজিদুল হারাম ও হজের পালনের স্থানগুলোতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমাণ্যে ১০ হাজার রিয়াল জরিমানা করা হবে। মক্কা নগরীর মিনা, মুজাদালিফা ও আরাফা প্রাঙ্গণও নিষেধাজ্ঞাও আওতায় থাকবে। স্থানীয় সময় ২৫ জিলকদ থেকে আগামী ১৩ জিলহজ পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

খবরে আরও বলা হয়, যে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, বার বার তা অমাণ্য করা হলে জরিমানার অঙ্ক দ্বিগুন হবে। একই সঙ্গে করোনা সংক্রমণ রোধে প্রণীত নীতিমালা লঙ্ঘন করলেও আর্থিক জরিমানা আরোপ করা হবে। সৌদি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় নিজ দেশের নাগরিক ও প্রবাসীদের এই নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলছে।

মূলত হাজিদের মধ্যে যেন কোনোভাবেই প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য এই কঠোর বিধান চালু করা হয়েছে। হাজিরা তো করোনা পরীক্ষা, টিকা গ্রহণসহ যথাযথ নিয়ম মেনে হজে অংশ নেবেনই, বাইরের কেউ যাতে কোনো কারণে তাদের মধ্যে ঢুকে যেতে না পারে সেজন্য কড়া পাহারার পাশাপাশি এই জরিমানার বিধান।
মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে জরিমানার বিধান জানানোর পাশাপাশি সম্মানিত হাজিদেরকে যথাযথ বিধিনিষেধ পালন করতে অনুরোধ করা হয়েছে। নিরাপত্তা কর্মীদেরকেও সার্বিক নিয়মের দিকে কড়া নজর রাখতে বলা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, চলতি বছর শুধু ১৮ থেকে ৬৫ বছর বয়সী মুসলমানরাই হজে অংশ নিতে পারছেন, তাও আবার মোট সংখ্যাটা ৬০ হাজারের মধ্যে সীমাবদ্ধ।