নোতুন খবর. ঃ
বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান একেএম আসাদুর রহমান দুলু বলেছেন, ১৫ আগস্ট ২১ আগস্ট এক ও অভিন্ন। ১৫ আগস্ট এর ঘটনার সাথে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা একই সূত্রে বা যোগ সূত্র রয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সহ সপরিবারের হত্যা করার পর আওয়ামী লীগ কে নিশ্চিহৃ করার জন্য এই গ্রেনেড হামলা হয়েছিল। বাংলাদেশের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত নৃশংস সহিংসতার যেসব ঘটনা ঘটেছে, ২১শে অগাস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনা তার একটি। ঐ ঘটনা বাংলাদেশের রাজনীতিতে গভীর প্রভাব ফেলেছে।

তিনি আরো বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করার মধ্য দিয়ে এদেশের স্বাধীনতা কে হত্যা করার চেষ্টা করা হয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কে হত্যা এবং অসা¤প্রদায়িক বাংলাদেশ কে হত্যা করতে চেয়েছিল। এসময় তিনি আরো বলেন যখনই বাংলাদেশের সাধারণ জনগণ বিপদে পড়েছেন তখনই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরবরের মতোই তাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। সারা পৃথিবী জুড়ে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব যখন বিপর্যস্ত তখন প্রধান এদেশের জনগনকে বাঁচাতে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাস, মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। কিš তার চলার পথকে বারবার বাধাগ্রস্ত করতে পাকিস্তানের প্রেতাত্মা বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান একের পর এক গভীর ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।
১৫ আগস্ট শোক দিবস ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় সকল শহীদদের স্মরণে শুক্রবার বাদ আছর বায়তুর রহমান সেন্ট্রাল মসজিদে বগুড়া কৃষক লীগের উদ্যোগে দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
বগুড়া জেলা কৃষক লীগের সভাপতি মোঃ আলমগীর বাদশার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. মঞ্জুরুল হক মঞ্জুর সঞ্চালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাবেক সদস্য আজমল হোসেন, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম, জেলা কৃষক লীগের সহ-সভাপতি আনোয়ার পারভেজ বাবু, আবু বক্কর সিদ্দিক রাজা, ইকবাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান মানিক, আখতারুজ্জামান তুষার, মাহমুদ খান ডন, মিজানুর রহমান মিজান, লেমন খন্দকার, বজলার রহমান বকুল, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম শাওন, যুগ্ম সম্পাদক আবু তোহা, ছাত্রনেতা মিলু, শহর কৃষক লীগের আহবায়ক মাসুদ রানা সরকার, যুগ্ম আহবায়ক তাহিয়াতুল কাবীর রাব্বুল, মাসুদ করিম, সাইদুল, আশরাফ, নুরু ও সুজন সহ প্রমূখ।
শেষে বঙ্গবন্ধু সহ সপরিবারে নিহতদের স্মরণে ও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।