নোতুন খবর.কম : সেশন ও ভর্তি ফি কমানোর দাবীতে নয় ছাত্র যুব সংগঠনের জেলা প্রশাসক বরাবর স্বারকলিপি প্রদান করেছে ও সমাবেশ করেছে।
রোববার সকাল ১১ টায় নয় সংগঠনের সমন্ময়ে এক আলোচনা সভা যুব ইউনিয়ন জেলার সভাপতি সাজেদুর রহমান ঝিলাম এর সভাপতিত্বে ও যুব জোট এর সভাপতি ওবাইদুল হক এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন, সিপিবি বগুড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড আমিনুল ফরিদ, ন্যাপ মোজাফ্ফর বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম টিপু, সুজন বগুড়ার সভাপতি হুমায়ুন ইসলাম তুহিন, উদীচী বগুড়া জেলা সংসদের সহ-সভাপতি এ্যাড. লুৎফর রহমান, বাংলাদেশ যুব মৈত্রী বগুড়া জেলা কমিটি সভাপতি তাইজুল ইসলাম রোম, সাধারণ সম্পাদক, আবুল কালাম আজাদ, যুব ইউনিয়ন বগুড়া জেলা কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রহমান মামুন, জাতীয় যুব জোট বগুড়া জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামিউল বারী রবি, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন বগুড়া জেলা সংসদের সভাপতি নাদিম মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, জাসদ ছাত্রলীগ বগুড়া জেলা কমিটির সভাপতি ওমর ফারুক। আলোচনা সভা শেষে শহরের প্রধান প্রধান সড়কে মিছিলসহ ডিসি অফিসে স্বারকলিপি প্রদান করা হয়।
স্মারকলিপিতে তারা উল্লেখ করেছেন, বগুড়ায় ভর্তি ও সেশন ফি নেয়ার ক্ষেত্রে সরকারি বিধিমালা না মেনে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে। আদালতের নির্দেশনা মানা হচ্ছে না। শহরের প্রায় প্রতিটি স্কুলেই আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ। আদালতের নির্দেশিত ২ হাজার টাকার স্থলে নেয়া হচ্ছে ৬ থেকে ২২ হাজার টাকা পর্যন্ত। বিষয়টি তদারকির জন্য হাইকোর্ট জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দিলেও তাদের তৎপরতা দায়সারা। আর সেই সুযোগে অভিভাবকদের গলা কাটছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলে অতিরিক্ত ফি আদায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে গত ২ জুলাই আদালত অতিরিক্ত অর্থ আদায়কে অবৈধ ঘোষণা করেন। একই সঙ্গে টাকা ফেরত দিতে সব স্কুল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু আদালতের সেই নির্দেশনা মানছেনা কোন স্কুলই। উল্টো ২০২০ সালের জন্য চলতি মাসেই (ডিসেম্বর) অতিরিক্ত সেশন ফি আদায় করা শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্যে ৬টি নামকরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সুনির্দিষ্টভাবে আইনের তোয়াক্কা না করেই ইচ্ছেমতো ফি আদায় করছে। বর্ধিত ফি আদায়ের প্রতিবাদ বগুড়ার নয়টি ছাত্র, যুব ও সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ও জনসচেতনতা বাড়াতে অভিভাবক সমাবেশ, পথসভা ও মানব বন্ধন ও লিফলেট বিতরণ করে। বিধায় শিক্ষা বাণিজ্য রুখতে সরকারি নীতিমালা ও আদালতের রায় কার্যকর করার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবেন।